মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে নতুন পরীক্ষা পদ্ধতির মুখে বাজার যাচ্ছে রাজ্য সরকার! এখন সেমিস্টার ভিত্তিক পরীক্ষা শুরু হচ্ছে স্কুল থেকেই

এখন সেমিস্টার ভিত্তিক পরীক্ষা শুরু হচ্ছে স্কুল থেকেই
এখন সেমিস্টার ভিত্তিক পরীক্ষা শুরু হচ্ছে স্কুল থেকেই

উচ্চশিক্ষার সিস্টেমের মতো, এখন থেকে স্কুল স্তরেও সেমিস্টার (সেমিস্টার) ব্যবস্থা প্রযুক্ত করতে চেষ্টা করছে রাজ্য সরকার। বাংলার নতুন শিক্ষা নীতি (নতুন শিক্ষা নীতি ডাব্লিউবি) বাস্তবায়নে নতুন দিকে অগ্রসর হতে চেষ্টা করছে। করোনা মহামারীর সময়কালে, উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে অথবা একাদশ এবং দ্বাদশ শ্রেণীতে সেমিস্টার ব্যবস্থা স্থাপনের উপায় নিয়ে আলোচনা হয়েছে, যেটি উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা পরিষদ প্রস্তাবিত করেছে। তবে, তখন এই বিষয়ে কোন নির্ণয় গ্রহণ হয়নি, তবে বর্তমানে স্কুল স্তর থেকেই সেমিস্টার ব্যবস্থা স্থাপনের দিকে এগিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

রাজ্য সরকার কেন্দ্রীয় শিক্ষা নীতির সম্পূর্ণ বাস্তবায়নে সম্মত নয়। গ্রাজুয়েশনের ক্ষেত্রে যে পরিবর্তন এনেছে, তা ছাত্র-ছাত্রীদের মতামত মনে রাখে এবং এটি ব্যবহার হয়েছে, এটি ব্রাত্য বসু (ব্রাত্য বসু) বলেছেন। বিধানসভায় শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু বলেন, রাজ্য সরকার কেন্দ্রীয় শিক্ষা নীতির সাথে সম্মত হননি। এটি ভবিষ্যতে পড়ুয়াদের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে বলে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। অনেকে পুনরায় বলছেন যে, চার বছরের স্নাতক কোর্স চালু করা আর কেন্দ্রীয় শিক্ষা নীতি (নতুন শিক্ষা নীতি ২০২০) অনুসরণ করা, এটি দুটি সম্পৃক্ত বিষয়।

বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিয়েছে এবং এই নতুন শিক্ষা নীতি কে তৈরি করা হয়েছে। নতুন প্রস্তাবিত নীতিতে উল্লিখিত হয়েছে যে, অষ্টম শ্রেণী থেকেই সেমিস্টার ব্যবস্থা আরম্ভ করা হবে। এই প্রস্তাবনাটি রাজ্য কমিটি প্রতিষ্ঠান করেছে।

গত সোমবার, মন্ত্রিসভার একটি বৈঠকে রাজ্যের নতুন শিক্ষা নীতি নিয়ে পলিসি নির্ধারণ করা হয়েছিল। এখানে শিক্ষা নীতির কাঠামো আসল পরিবর্তনের উদ্দেশ্যে নির্ধারিত হয়েছে। আগামী তিন বছরে, স্কুল স্তরে সেমিস্টার ভিত্তিক মূল্যায়ন পদ্ধতি ধাপে ধাপে আরম্ভ হবে। উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার জন্যও রাজ্য প্রধানের পরামর্শ অনুসরণ করেছে। এটি উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় এমসিকিউ ধরনের প্রশ্ন বিশ্লেষণের সাথে পরীক্ষার অংশে অন্তর্ভুক্তিকরণের বিচার করতে চলেছে।

স্কুল স্তরে, এখন বার্ষিক পরীক্ষা বদলে, বছরে দুটি বার সেমিস্টার ভিত্তিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। কলেজে সেমিস্টার বিধান যেমন ৬ মাস বা তারও কম সময়ে দুটি পরীক্ষা আয়োজন করা হয়, সেইসাথে স্কুল স্তরেও একই প্রয়োজন হবে। এই পদ্ধতি যদি সাফল্য অর্জন করে, তবে মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা পরিষদের অস্তিত্বের সুরক্ষা বজায় রাখা গড়ে তুলতে সাহায্য করতে পারে। তবে, এই সম্ভাবনার ক্ষেত্রে কিছু সংশয়ও থাকতে পারে।

বার্ষিক সেমিস্টার ভিত্তিতে পরীক্ষা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার অস্তিত্ব উত্থান পাবে না। এটি মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষাকে একটি সাথে একটি পরীক্ষার প্রতিষ্ঠান তৈরি করতে সাহায্য করতে পারে বলে মন্ত্রণালয় মনে করে।

উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে, ছাত্রছাত্রীদের সুবিধা মনে রেখে, রাজ্য সরকার এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে যে, সেমিস্টার ব্যবস্থা স্থাপনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here