পদ্মাসন করার পদ্ধতি ও উপকারিতা – Best Methods And Benefits Of Padmasana 1

পদ্মাসন করার পদ্ধতি ও উপকারিতা - Methods And Benefits Of Padmasana
পদ্মাসন করার পদ্ধতি ও উপকারিতা - Methods And Benefits Of Padmasana

পদ্মাসন করার পদ্ধতি ও উপকারিতা: যোগ (Yoga) হল প্রাচীন ভারতে উদ্ভূত এক বিশেষ ধরনের শারীরিক ও মানসিক ব্যায়াম এবং আধ্যাত্মিক অনুশীলন প্রথা। শরীর, মন সুস্থ ও সবল রাখতে এবং রোগ মুক্তিতে যোগাসনের ভূমিকা আজ সুপ্রতিষ্ঠিত। এই প্রথা সারা বিশ্বে আজও প্রচলিত আছে। তাই আজ আমরা আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি পদ্মাসন করার পদ্ধতি ও উপকারিতা। পদ্মাসন করার পদ্ধতি ও উপকারিতা নিয়ে নিচে আলোচনা করা হল।

পদ্মাসন করার পদ্ধতি

প্রথমে দুই পা সামনের দিকে ছড়িয়ে বসুন । এবার হাত দিয়ে ডান পা হাঁটুর কাছ থেকে ভাঁজ করে বাম পায়ের ঊরুর ওপর রাখুন । তারপর বাম পায়ের হাঁটু ভাঁজ করে একই নিয়মে ডান ঊরুর ওপর রাখুন এবং দুই পায়ের গোড়ালি দুটো যেন নিচের পেট স্পর্শ করে (২ নং ছবির মতো) ।

হাত দুটো দুই হাঁটুর ওপর রাখুন । হাতের তালু ওপরের দিকে থাকবে এবং হাতের বুড়ো আঙুল ও তর্জনী (ছবির মতো) ধরে রাখুন । মেরুদণ্ড সোজা রাখুন । শ্বাসপ্রশ্বাস স্বাভাবিক রাখুন । (২ নং ছবির মতো) সঠিক অবস্থায় বসে ধীরে ধীরে নাক দিয়ে দম নিন (বুক ফুলিয়ে) । এরপর দম পাঁচ/সাত সেকেন্ড ধরে ছাড়ুন ।

পদ্মাসন করার পদ্ধতি ও উপকারিতা - Methods And Benefits Of Padmasana
সহজ পদ্মাসন : ছবি- ১


ছাড়ার সময় আপনার পেট ভেতরের দিকে বসে যাবে । অর্থাৎ দম নিন বুকে, ছাড়ুন সম্পূর্ণরূপে এবং দম নেয়ার চেয়ে ছাড়ার সময় একটু বেশি নিন । এভাবে এক থেকে পাঁচ মিনিট পর্যন্ত পদ্মাসনে বসে প্রাণায়াম করতে পারেন । প্রয়োজনে পা অদল-বদল করে নিতে পারেন ।

যত দিন সহজে করতে অভ্যস্ত না হন ততদিন প্রথমে সহজ পদ্মাসনে অর্থাৎ এক পায়ে করে অভ্যাস করুন (১ নং ছবির মতো) । মনে রাখবেন- অভ্যস্ত না হওয়া পর্যন্ত কোনো আসন জোর করে করবেন না । নিয়মিত করলে ধীরে ধীরে ঠিক হয়ে যাবে এবং সঠিকভাবে করতে পারবেন ।

পদ্মাসন করার পদ্ধতি ও উপকারিতা - Methods And Benefits Of Padmasana
পদ্মাসন : ছবি- ২

পদ্মাসন করার উপকারিতা

1. মনোসংযোগ বৃদ্ধি পায়, মন স্থির হয় ।

2. পায়ের ব্যথা, হাঁটুতে বাত-ব্যথা হতে পারে না । পায়ের গ্রন্থিগুলোকে সুস্থ-সবল রাখে ।

3. পদ্মাসনে বসে প্রাণায়াম করলে ফুসফুস ভালো থাকে । ছোটবেলা থেকেই অভ্যাস করলে হাঁপানি হতে পারে না ।

4. মুখের ত্বক সুন্দর থাকে ।

5. এ আসন করার সময় মেরুদণ্ড সোজা থাকে । যাদের মেরুদণ্ড একটু বাঁকা, ক্রমাগত এ আসনটির অভ্যাস তাদের জন্যে খুবই উপকারি । এছাড়া মেরুদণ্ড থেকে যেসব স্নায়ু শরীরের বিভিন্ন জায়গায় গিয়েছে সেগুলোকে সক্রিয়ভাবে কাজ করতে সাহায্য করে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here