প্রতিদিন ৩০ মিনিট ব্যয় করুন সুস্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য ধরে রাখুন

প্রতিদিন ৩০ মিনিট ব্যয় করুন সুস্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য ধরে রাখুন
প্রতিদিন ৩০ মিনিট ব্যয় করুন সুস্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য ধরে রাখুন

প্রতিদিন ৩০ মিনিট ব্যয় করুন সুস্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য ধরে রাখুন: যোগ (Yoga) হল প্রাচীন ভারতে উদ্ভূত এক বিশেষ ধরনের শারীরিক ও মানসিক ব্যায়াম এবং আধ্যাত্মিক অনুশীলন প্রথা। শরীর, মন সুস্থ ও সবল রাখতে এবং রোগ মুক্তিতে যোগাসনের ভূমিকা আজ সুপ্রতিষ্ঠিত। এই প্রথা সারা বিশ্বে আজও প্রচলিত আছে। তাই আজ আমরা আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি প্রতিদিন ৩০ মিনিট ব্যয় করে সুস্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য ধরে রাখার উপায়। প্রতিদিন ৩০ মিনিট ব্যয় করুন সুস্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য ধরে রাখুন নিয়ে নিচে আলোচনা করা হল।

প্রতিদিন ৩০ মিনিট ব্যয় করুন সুস্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য ধরে রাখুন

প্রতিদিন ১৭ মিনিট ব্যায়াম ও ১৩ মিনিট শিথিলায়ন করুন । সব মিলিয়ে প্রতিদিন ৩০ মিনিটের প্রোগ্রাম ।

সকালে: ভোর ৫ টা থেকে দুপুর ১২ টার মধ্যে
বিকেলে: বিকেল ৪ টা থেকে সন্ধ্যা ৭ টার মধ্যে
সন্ধ্যার পর: সন্ধ্যা ৭ টা থেকে রাত ৯ টার মধ্যে

আরো পড়ুন: আসুন জানি ব্যায়ামের ভূমিকা

শনি থেকে বৃহস্পতি-সপ্তাহে ছয় দিন এর যেকোনো একটি প্রোগ্রাম অনুসরণ করতে পারেন । প্রথমে উজ্জীবন করে একটু ওয়ার্ম-আপ করে নিন । তারপর আসন শুরু করুন ।

প্রতিদিন ৩০ মিনিট ব্যয় করুন সুস্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য ধরে রাখুন

মোট: ১৭ মিনিট ১০ সেকেন্ড ব্যায়াম । ১৩ মিনিট (ব্যায়ামের আগে তিন মিনিট এবং শেষে ১০ মিনিট) সহজ শিথিলায়ন বা শবাসন ।

আরো পড়ুন: সহজ কিছু ব্যায়াম

বি. দ্র. : প্রতিদিন এই ৩০ মিনিট ব্যায়াম অনুশীলনের মধ্যে যদি কারো শারীরিক বিশেষ অসুবিধার কারণে কোনো ব্যায়াম নিষেধ থাকে তাহলে সেটি বাদ দিয়ে করবেন ।

ব্যায়ামের নিয়মাবলি ভালো ভাবে পড়ে দেখুন শারীরিক যেসব সমস্যার কথা লেখা হয়েছে সেসব অসুবিধা আপনার আছে কি না । প্রয়োজনে ডাক্তারের পরামর্শে শরীর চেক-আপ করিয়ে শারীরিক অসুবিধা জেনে নিয়ে নিয়মাবলি মেনে ব্যায়াম করুন ।

মাসে একদিন বা ১৫ দিনে একদিন সকাল বেলা বাসি পেটে বমন ধৌতি করে নিয়ে ১০ মিনিট শবাসন করুন । অন্য ব্যায়াম সেদিন না করলেও চলবে । এরপর নাশতা করে আধা ঘণ্টা শিথিলায়ন করুন ।

বজ্ৰাসন দুই/তিন বেলা খাবার পর করুন । এতে হজম শক্তি বৃদ্ধি পাবে ।

কোয়ান্টাম ব্যায়ামের মাত্র ৩০ মিনিট প্রোগ্রামে একজন মানুষের মাথা থেকে পা পর্যন্ত সর্ব অঙ্গের ব্যায়াম হয় এবং অভ্যন্তরীণ শিরা-ধমনী, স্নায়ু গ্রন্থি-সব সুস্থ রাখা যায় । কোন ব্যায়ামে শরীরের কোন অংশের উপকার হয় তা বর্ণনা করা হলো:

১. মাথা ও কপাল

শীর্ষাসন, শশাঙ্গাসন, হলাসন, বিপরীত করণী মুদ্রা, প্রাণায়াম

২. গলা

সর্বাঙ্গাসন, মৎস্যাসন, শশাঙ্গাসন, হলাসন, বিপরীত করণী মুদ্রা

৩. কাঁধ

গোমুখাসন, উষ্ট্রাসন, অর্ধচন্দ্রাসন, ভুজঙ্গাসন, সর্বাঙ্গাসন

৪. বুক

ভুজঙ্গাসন, ধনুরাসন, উষ্ট্রাসন, প্রাণায়াম

৫. পেট

হস্তপদাসন, জানুশিরাসন, উত্থিতপদাসন, পবনমুক্তাসন, অর্ধকূর্মাসন পশ্চিমোত্তানাসন

৬. মেরুদণ্ড

ভুজঙ্গাসন, শলভাসন, অর্ধশলভাসন, ধনুরাসন, উষ্ট্রাসন, অর্ধমৎস্যেন্দ্রাসন, অর্ধচন্দ্রাসন

৭. ঊরু এবং তার সংযোগস্থল

জানুশিরাসন, পশ্চিমোত্তানাসন, মুণ্ডকাসন

৮. নিতম্ব

বজ্রাসন, উষ্ট্রাসন, ধনুরাসন, অর্ধচন্দ্রাসন

৯. কোমর

অর্ধচন্দ্রাসন, ত্রিকোণাসন, উষ্ট্রাসন, লেগ সার্কেলিং

১০. হাত

ত্রিকোণাসন, শীর্ষাসন (হাতের ওপর ভর করে)

১১. পা

বজ্রাসন, উৎকট আসন, বৃক্ষাসন, ভদ্রাসন

১২. হৃৎপিণ্ড ও ফুসফুস

প্রাণায়াম

১৩. জননেন্দ্ৰিয়

ভদ্রাসন, উষ্ট্রাসন, শশাঙ্গাসন

১৪. চোখ

দৃষ্টিদান

১৫. কণ্ঠ

স্বরায়ন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here